শত্রু মোকাবেলা করতে জানে পাকিস্তান সেনাবাহিনী : আফ্রিদি

0
59

দৈনিক আলাপ আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের কিংবদন্তি ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি এক টুইটবার্তায় বলেছেন, ‘পাকিস্তানের সেনাবাহিনী জানে কীভাবে শত্রুকে মোকাবেলা করতে হয়। পাকিস্তান একটি শান্তিপূর্ণ প্রেমময় জাতি। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও যুদ্ধ চান না। দুই দেশের সংলাপেই সমাধান সম্ভব।’

১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী গাড়িবোমা বিস্ফোরণে ভারতের ৪০ জনেরও বেশি সেনা নিহত হয়। এরপরই এর দায় পাকিস্তানের উপর চাপায় ভারত। এতে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে উত্তজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এই ঘটনার পর গত মঙ্গলবার পাকিস্তানে হামলা চালায় ভারত। এদিকে বুধবার পাকিস্তানের আকাশসীমায় প্রবেশ করায় দুই ভারতীয় বিমান ভূপাতিত করে পাকিস্তান। এ সময় ভারতীয় বিমানবাহিনীরে এক পাইলটকে আটক করে পাকিস্তানের সেনারা।

হামলা করতে গিয়ে আহত অবস্থায় আটক হন ভারতীয় বিমানবাহিনীর পাইলট উইং কমান্ডার অভিনন্দন। আহত অবস্থায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয় পাকিস্তানের সেনারা।

এরপর সংবাদমাধ্যমে ভারতীয় বিমানবাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন বলেন, আমরা দুই প্রতিবেশী একে অপরের শত্রু রাষ্ট্র হলেও পাকিস্তান সেনাবাহিনী আমাকে আটকের পর চিকিৎসা দিয়েছে। সম্মান করেছে। পাকিস্তানের সেনারা খুবই ভদ্রলোক ও অমায়িক। আমি মনে করি পাকিস্তান আর্মি থেকে আমাদের ব্যবহার ও আচরণ শেখার আছে।

অভিনন্দন আরও বলেন, যারা পাকিস্তান সেনাদের বদনাম করেন তারা না জেনে করেন।

পাকিস্তানে বিমান হামলা ভারতের
ভারতের বিমানবাহিনী গতকাল মঙ্গলবার ভোররাতে লাইন অব কন্ট্রোল (এলওসি) বা নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে পাকিস্তানশাসিত আজাদ কাশ্মিরের বালাকোটসহ কয়েকটি স্থানে বোমাবর্ষণ করেছে।

এদিকে, পাকিস্তানি রেঞ্জার্স গতকাল ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মিরে পাল্টা হামলা চালিয়েছে। ভারত দাবি করেছে, তাদের হামলায় উগ্রপন্থীদের কয়েকটি ঘাঁটি ধ্বংস করা হয়েছে এবং অন্তত ৩০০ জন নিহত হয়েছে। তবে পাকিস্তান ভারতের দাবি নাকচ করে দিয়ে বলেছে, হামলায় কেউ হতাহত হয়নি। পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ভারতের বিমান হামলা প্রতিহত করা হয়েছে। তাদের বিমানবাহিনীর ত্বরিত পদক্ষেপে ভারতীয় বিমানগুলো পালিয়ে যায়।

এ সময় ভারতের একটি বিমান ভূপাতিত করা হয়েছে। ভারতের হামলার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জরুরি বৈঠক করে সেনাবাহিনীকে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশী ভারতের হামলাকে আগ্রাসন হিসেবে অভিহিত করে বলেন, এ হামলার জবাব দেয়ার অধিকার রাখে পাকিস্তান। খবর ডন নিউজ, বিবিসি, এনডিটিভি ও এএনআই।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত অধিকৃত কাশ্মিরের পুলওয়ামায় দেশটির ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ ফোর্সের’ গাড়িবহরে চালানো আত্মঘাতী হামলায় অন্তত ৪০ সদস্য নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক সংগঠন জয়েশ-ই-মুহম্মদ এ হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয়। ভারতের পক্ষ থেকেও হামলার জন্য ওই সংগঠনকে দায়ী করে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে তাদের আশ্রয় দেয়ার অভিযোগ তোলে দিল্লি। এ নিয়ে দুই দেশের বাকযুদ্ধের মধ্যেই এ বিমান হামলা চালানো হলো। এর আগে ২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ চালিয়েছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। ওই সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর এবার বিমান হামলা চালাল ভারত।

ভারত দাবি করছে, পূর্বপরিকল্পনা অনুসারেই এ অভিযান চালানো হয়। বালাকোট সেক্টর থেকে পাকিস্তানশাসিত কাশ্মিরের প্রায় ৮০ কিলোমিটার ভিতরে ঢুকে ভারতীয় যুদ্ধবিমানগুলো বোমা ফেলে বালাকোট, চাকোটি এবং মুজাফরাবাদে জয়েশ-ই-মোহাম্মদের তিনটি ঘাঁটি ধ্বংস করে। গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে সংগঠনটির কন্ট্রোল রুম আলফা-৩। ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এ হামলা নিয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

হামলায় অংশ নেয় ১২টি যুদ্ধবিমান : ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, গতকালের অভিযানে অংশ নেয়া ১২টি যুদ্ধবিমান ভোর ৩টা ৪৮ থেকে ৩টা ৫৫ মিনিট পর্যন্ত মুজফ্ফরাবাদে এ হামলা চালানো হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে চকোটি ও বালাকোটে বোমা ফেলা হয়। বিমানগুলো এ সময় এক হাজার কেজি বোমা ফেলে। হামলায় জইশ-এর তিনটি ক্যাম্প ধ্বংস হয়েছে। ভারতের মেজর জেনারেল এ কে সিভাচ বলেন, অভিযান পুরোপুরি সফল হয়েছে। তবে নিজের সুরক্ষার জন্য ভারতকে এখন আরো সচেতন থাকতে হবে।

ভারতীয় হামলা প্রতিহত করা হয়েছে : জেনারেল গফুর
পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর এক টুইটে বলেছেন, আজাদ কাশ্মিরে ভারতীয় হামলা প্রতিহত করেছে ইসলামাবাদ। ভারতীয় জঙ্গিবিমানগুলো খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের বালাকোটের কাছে বোমা বর্ষণ করে। জবাবে পাকিস্তানি বিমানবাহিনী তাদের ধাওয়া করে হটিয়ে দেয়।

সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ ইমরানের : ভারতের বিমান হামলার পর সম্ভাব্য সব ধরনের পরিণতির জন্য প্রস্তুত থাকতে সেনাবাহিনী ও দেশের মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির সদস্যদের নিয়ে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় জরুরি বৈঠক করেন ইমরান খান। বৈঠকে আজাদ কাশ্মিরে ভারতীয় হামলাকে চূড়ান্ত আগ্রাসন বলে মন্তব্য করা হয়। পরে ইমরান খান বলেন, সঠিক সময়ে এবং সঠিক জায়গায় উপযুক্ত জবাব দেবে পাকিস্তান। বৈঠক শেষে এক বিবৃতিতে ইমরান খান সশস্ত্রবাহিনী ও দেশের মানুষকে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকার নির্দেশ দিয়ে বলেন, এ অঞ্চলে ‘ভারতের দায়িত্বহীন নীতি’কে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের কাছে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY