আমেরিকা থেকে কবি ও লেখক সাহানুকা হাসান শিখা এর সমসাময়িক সময়ে নারীর অবস্থা ও অবস্থান নিয়ে লেখা “ জাগো নারী জাগো ”

0
75
আমেরিকা থেকে কবি ও লেখক সাহানুকা হাসান শিখা

জাগো নারী জাগো

                   সাহানুকা হাসান শিখা

ধর্ষণের জন্য দেশ আর রাজনীতি দায়ী নয়,দায়ী হলো এই সমাজ। এই সমাজ শিখিয়েছে নারী কে ভোগ করো আর ধর্ষণ করো। জন্মের পর থেকে একটি ছেলে দেখে আসছে নারীর স্থান কোথায়, নারীকে কি করা হয়। সিনেমা ফিল্মের মাঝে নারীকে প্রতারণা করা জোর করে ধর্ষণ করা, এই সবের মধ্য দিয়ে একটা ছেলে পুরুষে পরিণত হওয়ার পর পরই তার মধ্যে এই সব জিনিস জন্ম নিতে শুরু করে। একটা ছোট্ট বাচ্চা ছেলেকে মেয়ে বললে সে অপমান বোধ করে, রেগে যায়। তার মানে মেয়ে হওয়া খুব নিম্নমানের একটা জিনিস, মেয়ে মানুষ নয় সে শুধুই মেয়ে অথবা নারী। থাকে মারতে হলে শাস্তি দিতে হবে ধর্ষণের মাধ্যমে। তাকে ছলেবলে কৌশলে ভোগ করবে, আর প্রতিবাদ করলেই জোর করে গণধর্ষণ। সব সমাজে কম বেশী ধর্ষণ সমস্যা আছে কিন্তু আমাদের সমাজে এটা ব্যাধির মত,মহামারীর মত ছডিয়ে পরছে। সেটা কেন ?

আমাদের সমাজ নারীকে এখনও অনেক নীচে রেখেছে। বলছে মেয়েরা স্বাধীন, আসলে তা নয়। বাইরে গেলে আর চাকুরী করলেই নারী স্বাধীন হয়ে যায় না। নারীর নিজস্ব সত্তা আছে, তার শরীরটা তার
নিজের,তার উপর আরেক জন অধিকার খাটাবে কেনো ??? চলছে তো চলছে তো চলছেই মহাকাল জুড়ে। এ সবের প্রতিকারের জন্য নারীকে এগিয়ে আসতে হবে। সন্তান জন্ম দেয়ার পর তাকে এমনি ভাবে গড়ে তুলতে হবে, যেন কোন ভেদাভেদ না থাকে ছেলে আর মেয়ের মাঝে সব সন্তান একই সমান।সবাই মানুষ এক বাক্যে। তখন হয়তো এই উপলব্ধি আসবে ছেলেদের ভিতর, তখন ওরা একটু বুঝতে পারবে।

না হলে এই হিংস্রতা আর বর্বরতা বেড়েই চলবে, কোন কঠিন শাস্তিও কাজ করবেন না। শাস্তিও চলবে আর হিংস্রতাও চলবে। প্রশাসনের মাধ্যমে তো অবশ্যই কঠিন শাস্তি তাদের প্রাপ্য, তা ভোগ করতেই
হবে। নারীকে বিপদ থেকে বাঁচতে হলে আরও সচেতন হতে হবে। মেরুদণ্ড শক্ত করে দাঁড়াতে হবে। রোজ রোজ খবরের কাগজে আর ফেইস বুকে শুধু ধর্ষণ আর ধর্ষণ।

একটি নিরাপরাধ মেয়েকে মোবাই ফোন চুরির অভিযোগে ১০০জন মিলে ধর্ষণের হুমকি। যদি চুরিই করে, তারে অন্য শাস্তি থানা পুলিশ না করে ধর্ষণ, এই শাস্তি কেন ???!!
এই সবের মানে কি, আমি জানিনা !!

LEAVE A REPLY