”লিখবো মনে আসে যা খুশি ” লিখেছেন কবি —–মোঃমোক্তার হোসেন। যেটি প্রতিভা সন্ধান কাব্য পরিষদ ২৭ /১০/২০১৮ তারিখের সেরা লেখা ।

439
কবি —–মোঃমোক্তার হোসেন

লিখবো মনে আসে যা খুশি

                                                    মোঃমোক্তার হোসেন।

নীলাঞ্জনা তোমার শরীরের গঠন পাতলা রাঙা টুক টুক!
সোনার মত ঝলমলে করে তোমার মুখ,
প্রিয় তুমি দেবে আমায় একটা খাতা?
আমি লিখবো কবিতা ও মনে আসে যা খুশি তা।
নীলাঞ্জনা তোমায় আমি বলছি তুমি যে রূপের তরী,
নীলাঞ্জনা তোমার তরী নিয়ে চলছো আমি হাহা কারে মরি।
তুমি যে পথ দিয়ে আসা যাওয়া করো সে পথের লোকের বুকে!
ঢেউ উঠে এধার-ওধার ভেবে ভেবে থাকে সুখে,
রূপের ডালি সাজিয়ে চলেছো শাড়ির ভাঁজে ভাঁজে।
নীলাঞ্জনা তুমি কসুম ফুলের মত কত রঙে সাজে,
নীলাঞ্জনা দারাও একটু খানি?দেখবো তোমার মুখের হাসি,
খানিক দাড় করিয়ে রাখি,দিয়ে কথার ফাঁসি।
চলছো পথে ছড়িয়ে নানা রঙের ফুল,
কিছুটা কুড়িয়ে নিয়ে ভাষার ভুল।
তোমার ওই রূপের অঙ্গখানি গহনা শাড়ীর ভাঁজে,
আয়না খানি সামনে নিয়ে দেখ কত সুন্দর লাগছে যে।
সত্যি করে বলো নীলাঞ্জনা !সবার যেমন ভালো লাগে,
তোমার কাছে ও কি তেমন ভাগের ভাগে?
নিজের ভোগেই লাগে না যা কেন রাখ যত্ন করে,
সবধানেতে রেখেছো সবার আড়াল করে।
রূপ দেখে যার ভালো লাগে রূপ কি শুধু তার,
নীলাঞ্জনা তোমার হৃদয় উথাল পাথাল রূপের মহিমার।
কেন তুমি কৃপন এত এই রূপ যে তোমার নয়,
ঈশ্বরের দেওয়া রূপ যে তোমার অহংকার কি শোভা পায়।
সবই চলে যাবে, কিছুই থাকবে না চির তরে,
বাসর রাত শেষ না হতেই রূপের প্রদীপ ঝরে।
নীলাঞ্জনা কি করে রাখবো তোমায়?হালকা যে বাঁধন খানি,
শিথিল এত,পারি না যে রাখতে তোমায় টানি।
শুধু কথার সাগর নিতল জলে,
রূপে তোমার কোমল,ফুটে মেলে হাজার দলে।
কথার খাঁচায় বন্দী করা,
অনেক কালের সাধন স্বযম্বরা।
তোমার কথাও থাকবে না চিরদিন,
সেদিন তোমার-আমার রইবে না কোন চিন।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY