আসলে সত্য বড় অসহায়! ওপার বাংলার কবি বিজিত গোস্বামী এর চেতনার কবিতা “মৃত্যুর মুখোশ”

297
ওপার বাংলার কবি বিজিত গোস্বামী

“মৃত্যুর মুখোশ”

বিজিত গোস্বামী

——————
মৃত্যু অবধারিত আগে আর পরে
বাঁচো যতদিন সত্য আঁকড়ে চোখের সন্দেহ
এড়িয়ে কারন চোখ ভাষায় অনেক সত‍্য ৪)লুকিয়ে আছে সত‍্য চাহনি তুলে।

ঘুমের ঘোর; কতো প্রলাপ সত‍্য তখন বেপরোয়া
কান পেতে শোনো যা বললে
তাও কী সত‍্য? না কী ঘুম লাশ মনের কথা?
চোখ চাহনির চারপাশে অজস্র মিথ‍্যে
রোজ হাঁটে—হাঁটিহাঁটি পা পা।
সত‍্যের উপর নির্বিচার দানবীয় শোষণ
পিষে মারো ভয়ানক পদযাত্রায়।

সকাল থেকে রাত কতো মিথ‍্যে বলে বলে
যখনি একবার দাঁড়াও সত‍্যের মুখোমুখি
তখন হাজার মিথ‍্যের বেসাতি করে নিজের
দূর্বল ভীত শক্ত করতে মরিয়া প্রয়াস—সেটাও
আরেক ঢাকনা মিথ্যে—তাইনা?
যদি প্রশ্নে উত্তর লিখতে হয়—কে দরাজ

আমি মিথ‍্যেকেই শতাংশ দেব—কারন?
মিথ্যে এখানে বড় তেজি ঘোড়া।

আসলে সত্য বড় অসহায়!
এতে কেউ আত্মস্থ নয়; বিশ্বাস-অবিশ্বাস দোলায় বড়ই নিরুপায়
হাজার চেঁচিয়ে ও মিথ‍্যের কাছে পরাজিত।
আমি আজ মিথ‍্যেকেই মৃত্যু বলে জানি
সত‍্যের দামি কথা মিথ‍্যে খাঁচায় মৃত্যু তুলে দেয়।
চোখে হাজার লুকোচুরি দেখেও কিছু বলতে নেই
অনর্গল মিথ‍্যেরা আসর সাজিয়ে সত‍্যের অসহায় পথে মৃত্যু ডেকে আনে—
“ফাঁসির দড়িতে মোম দেওয়া হয়েছে”–কেন?
বাঁধনটা বেশ মজবুত হতে চাই
ক্ষুদিরামের এ সত‍্যচারণ আজো খোঁজে
দেখিনি—ভয় নাকি মৃত‍্যভয়!

আমি আজ পরম তৃপ্তিতে শ্বাস নিতে পারছি
ঘোর ঘুম আচ্ছন্ন দেহ;পরম আহ্লাদে মিথ‍্যেকেই জয়ী জেনেছি
কারন—আমি বড় বেশি সত‍্যের কাঙ্গাল।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY