প্রতিভা সন্ধান কাব্য পরিষদ এর ২১/১২/২০১৮ তারিখের সেরা লেখা কবি—- রাফিয়া সুলতানা এর কবিতা “ তোতা কাহিনী ”

334
কবি---- রাফিয়া সুলতানা

তোতা কাহিনী 

— রাফিয়া সুলতানা

সোনার খাঁচায় ছিলো সে এক-
বন্দী তোতা পাখি,
সঙ্গী মনের কেউ ছিলো না!
খাঁচার ভিতর আনাগোনা –
দাঁড়ে বসে করতো সে তাই
শুধুই ডাকাডাকি!

ডাকতো কাকে?
ঐ যে বসে হাইটেনশন তারে-
চন্দনা এক লাল ঠোঁট যার,
ডাকতো তাকে দূর থেকে ,আর
দেখতো চোখের আড়ে !
আসতো উড়ে কখন সখন
বারান্দার ঐ ধারে-
বনের সে চন্দনা,
গাইতো দুজন মনের কথা
শুনতো কত গল্প গাথা –
লাগতো সে মন্দ না!

মাঝে মাঝে ছটফটিয়ে
পাখনা দুটো ঝটপটিয়ে
ইচ্ছে হতো খাঁচার তোতার
মেলে যে তার ডানা,
উড়ে যেতে নীল আকাশে
নেইকো যেথায় মানা।
ছিলো না পথ, তাইতো মনে
ভাবতো বসে অকারণে-
রইতো সখার আশে,
আসবে কখন মনের মিতা,
বসবে এসে পাশে।

অপেক্ষাতে কাটতো প্রহর
গড়িয়ে যেতো বেলা,
কখনও বা বিহনে তার
অশ্রুবারি ফেলা!
ভাবতো মিতা –
সোনার খাঁচায় – জীবন সুখের ভারি
ভাবতো তোতা – পরের অধীন
দুঃখ শুধু তারই !

নিজের নিজের দুঃখে অধীর
গাইতো দুটি প্রাণ,
আপন মনের গোপন কথায় ,
বাঁধতো দুজন গান!
এমনি করেই কাটলো প্রহর
বয়ে গেলো সময় লহর,
পেরিয়ে বছর, মাস,
তোতার মনে এখন মিতার
নিত্য বসবাস!

কে জানে আর এমন করে
কাটবে কত কাল!
ভাঙবে কবে খাঁচার খিলান,
আসবে সুসকাল!
উড়বে দোঁহে নীল আকাশে
ভাসবে সুখে দূর বাতাসে,
প্রতীক্ষা সে মনে,
বাঁধবে দুজন সুখের বাসা,
দেখতো যা স্বপনে!

একদিন সে এলো না আর,
চন্দনা সে মিতা!
অপেক্ষা তে রইলো বসে,
কাটলো প্রহর, বছর-মাসে,
ব্যর্থ হলো দিনগোনা তার,
কাঁদলো কত তোতা!
বুঝলো না সে কোথায় গেলো,
মনের মিতার কী যে হলো,
মিলবে তারে কোথা!

চন্দনা সে পেলো যে এক
নতুন আলোর দিশা!
পেয়ে সে এক নতুন সাথী
ভুললো তোতায় রাতারাতি,
কাটলো যে তার নিশা !

তোতা শুধু দুঃখে মনের,
রইতো চেয়ে পানে বনের-
অধীর অনিমেষে ,
বৈশাখী এক ঝড়ের রাতে
মুষল ধারায় বৃষ্টিপাত এ
এলো যমের বেশে !
হঠাৎ বাজ এক পড়লো যখন
পাড়ি দিলো তোতা তখন–
চিরঘুমের দেশে!
থামলো যে তার কান্না -রোদন,
শেষ হলো সব দুঃখ বেদন,
……………………………….
কাহিনী তার শেষ এ !

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY