সাবেক ভূমিমন্ত্রী,সংসদ সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা জননেতা আলহাজ্ব শামসুর রহমান শরীফের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

274

দৈনিক আলাপ ওয়েবডেস্ক:‌ পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক ভূমিমন্ত্রী,সংসদ সদস্য ,ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধা জননেতা আলহাজ্ব শামসুর রহমান শরীফের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এক শোক বার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, শামসুর রহমান শরীফের মৃত্যুতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন দক্ষ সংগঠক ও অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদকে হারালো। তার মৃত্যু বাংলাদেশের রাজনীতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। রাষ্ট্রপতি প্রয়াত এই আওয়ামী লীগ নেতার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এক শোকবার্তায় ৭৫-এর ১৫ই আগস্টের পর দলের দুঃসময়ে তাঁর ভূমিকার কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন শেখ হাসিনা। তিন বলেন, ভাষা সৈনিক এই ত্যাগী ও জনবান্ধব রাজনীতিবিদের মৃত্যুতে দেশ ও জাতির এক অপূরণীয় ক্ষতি হলো। প্রধানমন্ত্রী তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

আজ বৃহস্পতিবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৫টায় ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর।
১৯৪০ সালের ১০ই মার্চ পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার লক্ষ্মীকুন্ডা ইউনিয়নের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৯৬ সালে দল তাকে মনোনয়ন দিলে বিপুল ভোটের ব্যবধানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০১, ২০০৯, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে মোট পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
শামসুর রহমান শরীফ ও মিসেস কামরুন্নাহার শরীফ দম্পতির ৫ ছেলে ও ৫ মেয়ের মধ্যে মেজ ছেলে রানা শরীফ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান।
শামসুর রহমান শরীফ দূরারোগ্য রোগে আক্রান্ত হয়ে বিগত ছয় মাস লন্ডন, মুম্বাই ও সর্বশেষ ঢাকায় চিকিৎসাধীন ছিলেন।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মরদেহ আজ ঈশ্বরদীতে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে জানাজা শেষে লক্ষ্মীকুন্ডায় গ্রামের বাড়িতে আরেকটি জানাজার পর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY