বুড়িগঙ্গার বাতাসে লাশের গন্ধ, বাড়ছে সংখ্যা

109
সদরঘাটের বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চ ডুবি
ছবি: সংগৃহীত

দৈনিক আলাপ ওয়েবডেস্ক:‌ রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকা সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা নদীতে প্রায় অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে একটি যাত্রীবাহী লঞ্চ ডুবে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সকালে সদরঘাটের শ্যামবাজার প‌য়ে‌ন্টে ময়ূর-২ নামের লঞ্চের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ডুবে যায় মর্নিং বার্ড লঞ্চ।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া আরও অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত উদ্ধারে তৎপরতা চালাচ্ছেন নৌবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

আজ সোমবার (২৯ জুন) ঘটনাস্থল থেকে ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, এখন পর্যন্ত নিহতদের মধ্যে পুরুষ ২৩ পাঁচজন নারী এবং দুইজন শিশু রয়েছেন। এদিকে অভিযুক্ত লঞ্চটিকে আটক করা হয়েছে। তবে চালক পলাতক। অন্যদিকে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি শনাক্ত করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক হাফিজুর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক জানান, ময়ূর–২ নামের একটি লঞ্চ সদরঘাট লালপট্টি থেকে চাঁদপুরের দিকে যাচ্ছিল। ওই লঞ্চটি মর্নিং বার্ডকে ধাক্কা দেয়। এতে মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি ডুবে যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ময়ূর ২ নামের একটি লঞ্চের ধাক্কায় কমপক্ষে ৭০ যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়। এদিকে বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় নারায়ণগঞ্জ থেকে ঘটনাস্থলের দিকে রওনা হয়েছে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ধারণা করা হচ্ছে প্রায় ৭০/৮০ জন যাত্রী ছিলেন ওই লঞ্চে। এর মধ্যে নিখোঁজ হয়ে যান প্রায় ৭০ জন।

এছাড়া, নিখোঁজদের স্বজনদেরকে বিআইডব্লিউটিএর ০১৭১৬০২৬৭০৪ এর নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। সংস্থাটি জানায়, মুন্সিগঞ্জ হতে আগত লঞ্চ মর্নিং বার্ড-এর যে সকল যাত্রী নিখোঁজ তাদের স্বজনদের এই নম্বরে যোগাযোগের অনুরোধ করা হল।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY