৫১৬১ বাংলাদেশি পণ্যে শুল্কমুক্ত সুবিধা দিল চীন

46
বাংলাদেশ - চীন
ছবি: সংগৃহীত

দৈনিক আলাপ ওয়েবডেস্ক:‌ চীনে আরও ৫ হাজার ১৬১টি পণ্যের শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুবিধা পেয়েছে বাংলাদেশ। এর মাধ্যমে দেশটিতে মোট শুল্কমুক্ত পণ্যের সংখ্যা দাঁড়াল ৮ হাজার ২৫৬টি। চীনের বাজারে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যের ৯৭ শতাংশই শুল্কমুক্ত সুবিধার আওতায় এলো।

চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীক সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। বিশেষ করে এ অঞ্চলে চীনের পণ্য আমদানির বড় ক্রেতা বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশ থেকে চীনে পণ্য রফতানির গতি খুব একটা বাড়ছিলো না।

এবার চীনের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য রফতানির পথ আরো উন্মুক্ত হলো। সরকারের অর্থনৈতিক কূটনীতির অংশ হিসেবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চীনের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা চেয়ে চীন সরকারকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ। এ অনুরোধের প্রেক্ষিতে চীনের স্টেট কাউন্সিলের ট্যারিফ কমিশন ১৬ জুন এ নোটিশ জারি করে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বৃহস্পতিবার রাতে গণমাধ্যমকে জানান, বাংলাদেশ যে ইকোনমিক ডিপ্লোমেসি বা অর্থনৈতিক কূটনীতি চালু করেছে, এটা তারই বড় অর্জন। এই সিদ্ধান্তের ফলে চীনের বাজারে বাংলাদেশের ৯৭ শতাংশ পণই শুল্ক মুক্ত সুবিধা পাবে। এটাকে শত ভাগ শুল্কমুক্ত রপ্তানি সুবিধাও বলা যায়। কারণ বাংলাদেশ থেকে যত ধরনের পণ্য চীনে রপ্তানি হয় তার মধ্যে মাত্র ৩টি বাদে সবই বিনা শুল্কে দেশটির বাজারে ঢুকতে পারবে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ চীনে ৮৩ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি করে। বিশেষ করে কাচা চামড়া, চামড়াজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত পণ্য, তৈরি পোশাকসহ কাঠের আসবাবপত্র উল্লেখযোগ্য। বাংলাদেশে উৎপাদিত প্রক্রিয়াজাত চামড়ার ৬০ শতাংশের বেশি রফতানি হয় চীনে।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY