যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড-১৯ আক্রান্তের প্রকৃত সংখ্যা ২ কোটি

45
যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি রাজ্যেই করোনাভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

দৈনিক আলাপ ওয়েবডেস্ক:‌ যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাস সংক্রামণ কমার কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। বৃহস্পতিবারও দেশটিতে ৪০ লাখের বেশি মানুষ নতুন করে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছে। ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৫ লাখ ৪ হাজার ৫৮৮তে গিয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানাচ্ছে রিয়েল-টাইম ডাটা বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার। তবে প্রকৃত সংখ্যা আরও অনেক বেশি হবে বলেই ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

যুক্তরাষ্ট্রে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, ইতোমধ্যে দেশের কমপক্ষ ২০ মিলিয়ন বা দুই কোটি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের দ্য সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি) বলছে, প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, দেশে প্রকাশিত সংখ্যার কমপক্ষে ১০ গুণ বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

সাম্প্রতিক দিনগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোতে বেশি সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। আগামীতে ওই রাজ্যগুলোতে কোভিড-১৯ মহামারি আরও ভয়ঙ্কর রূপ নিতে পারে বলে ইতিমধ্যে সতর্ক করে দিয়েছেন দেশটির শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউচি।

এই অবস্থায় দ্য ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের আশঙ্কা, আগামী অক্টোবরের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক লাখ ৪৬ হাজার থেকে এক লাখ ৮০ হাজার মার্কিনী মারা যাবে

সিডিসির ডিরেক্টর ড. রবার্ট রেডফিল্ড বলেছেন, আমরা এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণের যে চিত্র দেখেছি, প্রকৃতপক্ষে তারচেয়ে ১০ গুণ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

জোরালোভাবে করোনা টেস্টিং না করাকেই এজন্য দায়ী করছে সিডিসি। যুক্তরাষ্ট্রের এই স্বাস্থ্য সংস্থাটি বলছে, উপসর্গবিহীন ও উপসর্গ দেখা দেয়া ব্যক্তিদের সেভাবে করোনা পরীক্ষা করা হয়নি। যে কারণে আক্রান্তের সংখ্যাটা অনেক গভীরে গেছে।

সিডিসি’র পরিচালক ড. রেডফিল্ড বলেন, গত তিন মাসে-মার্চ, এপ্রিল ও মে আমরা যেসব পদ্ধতিতে কোভিড-১৯ চিহ্নিত করেছি, বলা যেতে পারে তার মাধ্যমে আমরা সম্ভবত মাত্র ১০ শতাংশ আক্রান্তদের চিহ্নিত করতে পেরেছি। বাকি ৯০ শতাংশই করোনা পরীক্ষার বাইরে ছিল।

ড. রেডফিল্ডের ধারণা, যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনগোষ্ঠীর ৫ থেকে ৮ শতাংশ মানুষ ইতোমধ্যে কোভিড-১৯য়ে আক্রান্ত হয়েছে।

আগামী শীত মৌসুমে যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতিতে আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলেও আশঙ্কা এই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের। এ অবস্থায় তিনি দেশের নাগরিকদের প্রতি যাবতীয় সুরক্ষা (মাস্ক পরা ও ঘনঘন হাতে ধোয়া) এবং যথাযথ সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন।

সূত্র: বিবিসি

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY