যশোরে লাবনী হত্যা ৮০দিন পর শ্বশুর শাশুরী আটক।

840

মীর ফারুক যশোর জেলা প্রতিনিধি :যশোর মণিরামপুরের নেহালপুর ঋষিপল্লীর সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কলেজ ছাত্রী লাবনী(২০)কে হত্যা করা হয়েছিলো।তদন্তে ঘটনায় সাথে জড়িত থাকায় প্রমাণিত হওয়ার ৮০দিন পর লাবনী শ্বশুর শাশুরীকে আটক করেছে পুলিশ।

এরা হলো লাবনীর শ্বশুর গৌরপদ দাস(৫০) ও শ্বাশুড়ী মালনী দাস(৪০)। সোমবার লাবনী হত্যার ময়না তদন্ত প্রতিবেদন  পুলিশ হাতে পায় । এ ঘটনায় সোমবার ৭ জনের নামে হত্যা মামলা করা হয়েছে। তবে ঘটনার মূলহোতা পরশ দাস পলাতক রয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার নেহালপুর ঋষিপল্লীর স্বপন দাসের কন্যা লাবনী দাস(২০) কে চলতি বছরের ২৯ আগস্ট রাতে হত্যা করে তার লাশ ঘরের আড়ায় ঝুলিয়ে রাখা হয়। লাবনী দাসের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা প্রচার করে লাবনী গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনার পরদিন মণিরামপুর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু হয়। যার মামলা নং- ৪৯(৮)১৮।

কিন্তু লাবনীর পিতা-মাতাসহ স্থানীয়দের দাবী লাবনীকে পরিকল্পিতভাবে তার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা হত্যা করে লাশ ঘরের আড়ায় ঝুলিয়ে রেখে হত্যা ঘটনা ধামাচাপা দিয়েছে। লাবনী মণিরামপুর ডিগ্রী কলেজের অনার্সের ছাত্রী ছিলো। তার এই মৃত্যুকে অপমৃত্যু বলতে নারাজ ছিল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, এলাকার সুধিজন সর্বমহল। লাবনী হত্যাকান্ডে জড়িত স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ীকে আটক ও হত্যা মামলার দাবিতে লাবণীর সহপাঠী, শিক্ষকসহ  সর্বস্তরের লোক উপজেলাসদরসহ বিভিন্ন এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। কিন্তু পুলিশ এ দাবীকে উপেক্ষা করে তড়িঘড়িপূর্বক একটি অপমৃত্যু মামলা করে  ঘটনাটি ধামাচাপা দিয়ে রাখে বলে অভিযোগ।

এদিকে আলোচিত এ ঘটনার ডাক্তারী প্রতিবেদন পুলিশ হাতে পেয়ে সোমবার সকালে লাবনীর শ্বশুর গৌরপদ দাস(৫০) ও শ্বাশুড়ী মালনী দাস(৪০) কে আটক করে থানায় আনেন। মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই আব্দুর রহমান জানান, ডাক্তার মতামত দিয়ে বলেছেন, লাবনীকে হত্যা করা হয়েছে। এজন্য আটক দু’জনসহ ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের নামেও হত্যা মামলা রুজু করা হয়েছে। মামলার বাদী লাবনীর পিতা স্বপন দাস জানান, তার কন্যাকে ১০/১২ জনে মিলে হত্যা করে লাশ আড়ায় ঝুলিয়ে রাখে। তবে, ঘটনার মুল হোতা লাবনীর স্বামী পরশ দাস পলাতক থাকায় পুলিশ তাকে আটক করতে পারেনি।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY