কুষ্টিয়ায় চাচা হত্যায় ভাতিজার মৃত্যুদণ্ড

54
আদালত
প্রতীকী ছবি।

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলায় স্কুলশিক্ষক মুন্সী রবিউল ইসলামকে হত্যা মামলায় ভাতিজা সোহাগের মৃত্যুদণ্ড এবং অপর তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ সময় প্রত্যেকের ২০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া জেলা ও জায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী চার আসামির উপস্থিতিতে আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন– কুমারখালী উপজেলার দয়ারামপুর গ্রামের মুন্সী রেজাউল করীমের ছেলে মুন্সী মো. সোহাগ (৫৫)।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- একই গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মো. রাজু আহমেদ (৩৫), কোমরকান্দি গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে রুবেল (৩০) এবং দুর্গাপুর গ্রামের হাতেম শেখের ছেলে আজাদ(৪০)।

আদালতসূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি রাত ১টায় উপজেলার হোগলা মহেন্দ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুন্সী রবিউল ইসলামকে তার নিজ বাড়িতে অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় নিহতের মা হাওয়া খাতুন বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে হত্যা করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে এই হত্যাকাণ্ডে চার আসামির জড়িত অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতার ভিত্তিতে ২০১৬ সালের ৪ এপ্রিল আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ।

মামলাটির মোটিভ সম্পর্কে প্রসিকিউশন সূত্রে জানা যায়, এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত প্রধান আসামি নিহতের আপন ভাইয়ের ছেলে মুন্সী মো. সোহাগের সঙ্গে জমিসংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরে অপর আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে পরিকল্পিত হত্যা করে।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, কুমারখালী থানার চাঞ্চল্যকর ভাতিজার হাতে স্কুলশিক্ষক চাচা হত্যার ক্লু-লেস মামলাটি তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের শনাক্ত করে দীর্ঘ সাক্ষ্য শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত যে রায় দিয়েছেন, তাতে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY