বিদ্যমান সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যেই সমস্যার সমাধান সম্ভব: বামজোট

199

ঢাকা প্রতিনিধি: বিদ্যমান সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যেই সমস্যার সমাধান সম্ভব বলে মনে করছে বামজোট। বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, ‘আমরা পরিষ্কার করে বলেছি, যদি সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত এবং সদিচ্ছা থাকে, তাহলে বিদ্যমান সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যেই সমস্যার সমাধান সম্ভব।’ মঙ্গলবার দিবাগত রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আট দলীয় বামজোটের সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন সাইফুল হক।

সাইফুল হক বলেন, প্রায় ৩ ঘণ্টা প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সহকর্মীদের সঙ্গে বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দের সংলাপ হয়েছে। সংলাপে আমরা আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেন একটি অবাধ, গ্রহণযোগ্য ও ভয়ভীতিহীন পরিবেশে হতে পারে, সে জন্য আমরা আমাদের সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা পেশ করেছি। তিনি বলেন, আমরা বলেছি, তফসিলের আগে সংসদ বিলুপ্ত করা, সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তদারকি সরকার গঠন করা, জনগণের আস্থাহীন এই নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করা এবং কালো টাকার যে নির্বাচনী ব্যবস্থা, তাতে পরিবর্তন করা। বিশেষভাবে আগামী নির্বাচনে ডিজিটাল কারচুপির সুযোগ থাকা ইভিএম ব্যবস্থা প্রবর্তন না করা। সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করেছি।

সংলাপের পরিবেশের কথা জানিয়ে সাইফুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সহকর্মীরা আমাদের বক্তব্য শুনেছেন। আমরা আমাদের বক্তব্য যুক্তি দিয়ে উপস্থাপন করেছি। তিনি বলেন, যেহেতু বর্তমান সংসদ বহাল আছে এবং সরকারি দল ও জোটের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে, তাই চাইলেই তারা সংসদ ডেকে এই জন দাবিগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনতে পারে। তাঁরা এসব শুনেছেন, নোট নিয়েছেন এবং সর্বশেষ আমরা যা বলেছি, এই সংলাপের যে সুযোগ এই সুযোগকে যেন আমরা হেলাফেলা না করি। কারণ সমগ্র দেশ ও জনগণ, আগামী নির্বাচন নিয়ে মানুষের যে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা, ফলে সরকারি দলের রাজনৈতিক সদিচ্ছার ওপর আগামী নির্বাচন কীভাবে হবে, সেটা অনেকাংশেই নির্ভর করছে।

সাইফুল হক আরও বলেন, আমরা বলেছি আমরা আলোচনা যেমন করছি, পাশাপাশি রাজপথে আমাদের যে ধারাবাহিক আন্দোলনের কর্মসূচি, জনগণকে সম্পৃক্ত করে, এই দাবিগুলো আদায়ের জন্য আজকে যে গণমিছিল ও পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে, এ রকম গণমিছিল ও পদযাত্রা দেশব্যাপী অব্যাহত থাকবে।

এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, আমাদের আশাও আছে, শঙ্কাও আছে। আমরা আমাদের দাবি তুলে ধরেছি। এখন বল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোর্টে। ওনার সিদ্ধান্ত দেখে আমরা ব্যবস্থা নেব।

বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান ভূঁইয়া বলেছেন, আশা এবং শঙ্কা নিয়ে আলোচনা শেষ হয়েছে। অনেক বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সরকার তাদের পক্ষে সেটাকে ডিফেন্ড করার চেষ্টা করেছেন। তাঁরা বলেছে, তাঁরা একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, আমরা বলেছি, আসলে গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি হয়নি। অনেকটা প্রতিকূলতা আছে। এগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কতটুকু সরকারের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে, কতটুকু পদক্ষেপ সরকার গ্রহণ করবে, সেটা ভবিষ্যতে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস কনফারেন্সের পর জানা যাবে। তখন আমরা আমাদের সিদ্ধান্তের কথা জানাব

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY