ভয়ঙ্কর লক্ষ্যভেদী এক অবিনাশী খেলা। “উৎসুক অপেক্ষা”কবিতাটি লিখেছেন কলমযোদ্ধা সৈয়দা কামরুন নাহার শিল্পী ।

508
“উৎসুক অপেক্ষা”কবিতাটি লিখেছেন কলমযোদ্ধা সৈয়দা কামরুন নাহার শিল্পী ।
কলমযোদ্ধা সৈয়দা কামরুন নাহার শিল্পী

উৎসুক অপেক্ষা

             সৈয়দা কামরুন নাহার শিল্পী

বুঝতে পারিনা নীরব কেন তুমি বাইরে দেখছো কি দমকা হওয়া আর ঝড় বৃষ্টি ।
আমি ভীষণ অসহায় এই মুহূর্তে উৎসুক হয়ে তাকিয়ে আছি জানালায় ।

সদর দরজায় চাবি আঁটা
না কেউ প্রবেশ করতে পারবে না সে চিন্তা করোনা তুমি ,কেউ প্রবেশ করতে পারবে না ।
এটুকু ভরসা করতে পারো, তবে আজ ঝড়ের ঝাপটায় নিজে নিজেকে চিনতে ভীষণ ভুল হচ্ছে।
সকাল বিকেল সন্ধ্যা যে অপেক্ষা ছিল আজ মনে হয় না অপেক্ষা আর নয় সময় বড় দুঃসময়।
প্রতিটা নিঃশ্বাসে বিষ ঢুকে যাচ্ছে ভালো নেই আমি। ভালো নেই নীরব থেকো না তুমি।

আঁধারের দেয়াল চারপাশে বিশ্বাস রাখতে পারি না এ আঁধারে কোন একজনকে কেউ নয়!
তবে বল বিশ্বাস যদি নাই থাকে তবে কি নিয়ে কোন ভরসায় এই বেঁচে থাকা।
স্বপ্নের নিশুতি রাত জেগে কেন অপেক্ষা!

জন্ম মৃত্যু জানি সব তার হাতে তবুও এত উৎকণ্ঠা নিয়ে কি করে জীবন চলে।
ভয়ঙ্কর লক্ষ্যভেদী এক অবিনাশী খেলা।
শুধু নিজের স্বার্থ সিদ্ধি যদি হয় করোনা ভাইরাস নামক ভাইরাস আজ শোকসভায় মরণ পুরি সেখানে নাকি চীন দায়ী!!

সে কথা জেনে আমি স্তম্ভিত যেখানে মৃত্যুর মিছিল শোক সভা চলছে যত্রতত্র করোনার বোতাম অজান্তেই হয়তো ঢুকে আছে সবার শরীরে ।
সেখানে উৎসুক মন কি চায় বলতে পারো ?

মৃত্যুপুরী হতে পুরী গুমড়ে গুমড়ে কাঁদছে চার দেয়ালে কান্নাগুলো বন্দী হচ্ছে।
শুনছো ,আমাদের বাংলাদেশের মেয়ে তৃষা নিউইয়র্কে করোনায় মৃত, ক্রেন দিয়ে সমাধিস্থ হল–

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here