তারুণ্যের কবি কে এম সুলাইমান এর জীবন ঘনিষ্ঠ অসাধারন কবিতা “আমার ছোট্ট গ্রাম”

325
তারুণ্যের কবি কে এম সুলাইমান এর জীবন ঘনিষ্ঠ অসাধারন কবিতা “আমার ছোট্ট গ্রাম”

আমার ছোট্ট গ্রাম

কে এম সুলাইমান

আমার গ্রামের নেই তুলনা সব গ্রামের সেরা,
চারদিকে সবুজ শ্যামল ফসলে মাঠ ভরা।
এমন গ্রাম আর তো ভাই অন্য কোথাও নাই,
তাইতো আমি সব টুকো সুখ এই গ্রামে পাই।

গ্রামটি আমার দেখতে সুন্দর যদি কেহ যাও,
দারচিড়া নদীর তীরে পাবে আমার ছোট্ট গাঁও।
দুই পাশে দুই ছোট্ট নদী অবিরত বয়,
সেই নদীতে পল্লী বধুরা জল ভরিতে যায়।

গ্রামের পথ কাঁচা রে ভাই দেখতে লাগে ভারী,
আকাবাকা পথ বেয়ে যাচ্ছে গরুর গাড়ি।
ছয় ঋতুতে ছয় রকম সাজে গ্রামের প্রকৃতি,
দূরে কোথাও গেলে মনে পড়ে গ্রামের স্মৃতি।

বর্ষা এলে নদীর পানি উঠে যখন তীরে,
দস্যু ছেলেরা খেলা করে ফিরতে চায় না ঘরে।
বেলা শেষে ফিরে যখন দুষ্টু ছেলের দল,
মা জিজ্ঞেস করে বাবা কোথায় ছিলি বল।

শ্রাবণ-ভাদ্র মাসে কৃষক ফলায় মাঠে ধান,
কাজ করে আর মনের সুখে গায় নানান গান।
কার্তিক মাসে মাঠে মাঠে থাকে ফসল ঘিরে,
গ্রামটি আমার পূর্ণরূপ পায় তখন ফিরে।

মাঠের পাশে রাখাল ছেলে বাজায় বাঁশের বাঁশি,
তা শুনে পল্লী মেয়েরা দেয় যে মুচকি হাসি।
বেলা শেষে রাখালবালক ফিরে যখন নীড়ে,
গোয়াল ঘরে বেদে গরু বসে নিজের ঘরে ।

সন্ধ্যা হলে মাটির প্রদীপ জলে ঘরে ঘরে,
তখন মনে হয় মোরা যেন আছি আজব শহরে।
নেই কোথাও অট্টলিকা সব যে কুঁড়েঘর ,
থাকি সেথা সবাই সুখে দুখে নাহি কেহ পর

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY