সৃজনশীল কবি-আয়েশা মুন্নি’র নির্বাক অন্তরের লেখা গদ্য কবিতা “দূরত্বের বৈরাগ্যে”

45
আয়েশা মুন্নি’র নির্বাক অন্তরের লেখা গদ্য কবিতা “দূরত্বের বৈরাগ্যে”

দূরত্বের বৈরাগ্যে
আয়েশা মুন্নি

তোমার সাথে যখন হৃদত্যার সুত্রপাত হয়েছিল, বাইরে তখন অঝোর ধারায় বৃষ্টি।
গাছের পাতারা ধুয়ে পরিচ্ছন্ন রঙিন হতে শুরু করে সবেমাত্র।
তুমি অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে নিজেকেই যেন নিজে বললে ‘কি সুন্দর’!

আমি ঠোঁটের কোনে হাসি টেনে ফেরার পথ ধরতেই, তুমি নিমগ্ন ধ্যানে আওড়ে গেলে অরন্যক বসু-
“এ জন্মের দূরত্ব টা পরের জন্মে চুকিয়ে দেব,
এ জন্মের চুলের গন্ধ পরের জন্মে থাকে যেন”…

তবে কি প্রণয় জাতীয় পতাকার মতো শোভন সুন্দর! গোলার্ধের মতো মহাবিষুব হতে জলবিষুব।
তবুও কখনোতো, কোথাও জীবন সুন্দর!

সেদিন সন্ধ্যার পিচ ঢালা ভেজা রাস্তা গল্প জমা করল। আমার সমস্ত শহর, নাগরিক বাতাস তোমার চেনা সুরের আমলকিতে থমকে গেল। শহীদ মিনার বেদীতে যে ফুলগুলো ছিল তাঁরাও বৃষ্টি মেখে নব কল্লোলে মেতে উঠলো।

কিন্তু আমাদের পথচলা জীবন অনিশ্চিয়তা দূরত্ব। আমরা বুঝতে শুরু করলাম আমাদের আলাদা রকম সকাল, আমাদের দুপুর একসাথে হচ্ছে না, রাত বিলীন হচ্ছে নিজস্ব আঁধারের করবীতে। অথচ এখনো প্রতিদিন আমরা হাঁটি দূরত্বের বৈরাগ্যে।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY