ভারত থেকে কলমযোদ্ধা-সুমিতা বর্ধনের অনন্য সৃষ্টি দুইটি কবিতা “ঈশ্বরের কান্না”ও“আমি চেয়েছিলাম”

276
কলমযোদ্ধা-সুমিতা বর্ধনের অনন্য সৃষ্টি দুইটি কবিতা “ঈশ্বরের কান্না ” ও “আমি চেয়েছিলাম”

ঈশ্বরের কান্না
সুমিতা বর্ধন

আমি ঈশ্বর খুঁজি
একটা দুটো নয়
অনেকগুলো ঈশ্বর,
আমি চাই জীবনের সুখগুলো
উজাড় করে দেবে আমায় ঈশ্বর,
যেগুলো ইশ্বরের হেফাজতেই রয়ে যায়,
যার একটি মাত্র আঙুলের খেলায়
পৃথিবীর সর্বসুখ হতে পারে আমার।
আমি চাই একদিন ঈশ্বরও আমার নিজস্ব হয়ে যাক।
অনেক নামের আর
ভিন্ন রকমের ঈশ্বর,
সাদা ,কালো বা আকারহীন ঈশ্বর
বিশ্বাসে ঈশ্বর, ভরসায় ঈশ্বর
আমি চাই ঈশ্বর আসুক
আমার দুঃখ, কষ্ট গুলো ফিরিয়ে নিক,
আমি রোজ ঈশ্বরের কাছে
দুঃখের গান গাই
আর কাঠগড়ায় দাঁড় করাই তাঁকে,
হতবাক ঈশ্বর বোবা মুখে তাকিয়ে রয়,
পাওয়া না পাওয়ার হিসেবে আর
যোগ বিয়োগের ঘূর্ণি পাকে
মানুষ ঘুরতেই থাকে
সহস্র যুগ ধরে।
আর আমাদের অগোচরেই থেকে যায়-
কাঠগড়ায় দাঁড়ানো ঈশ্বরের
অশ্রুসিক্ত নয়ন।

আমি চেয়েছিলাম
সুমিতা বর্ধন

আমি চেয়েছিলাম কেউ আমাকে ভালবাসুক আমার শরীরকে নয়,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার ছোট ছোট দুস্টুমি গুলোকে প্রশ্রয় দিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার অধিকারটুকু মেনে নিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার আবদারটুকু নিজের করে নিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার ভুলগুলো শুধরে দিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার কর্তব্য গুলো বুঝিয়ে দিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমায়
না-চাইতে অনেক ভালবাসা দিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমার কপালে চুমু খেয়ে আমাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে দিক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমায় এগিয়ে যেতে সাহায্য করুক,
আমি চেয়েছিলাম কেউ আমায় জড়িয়ে ধরে বলুক ,
“পাগলী এবার তো বড় হযে যা “।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here